লেটেস্ট খবরবিনোদনভাইরাললাইফ স্টাইলঅফবিটরেসিপি

বাংলা মাধ্যমে পড়েই বাজিমাত, UPSC-তে দেশে দ্বিতীয় আলিপুরদুয়ারের রাজমিস্ত্রির ছেলে বাপ্পা

Upsc (Union Public Service Commission) দ্বারা আমাদের ভারতে বিভিন্ন পরীক্ষা নেওয়া হয়, যার মধ্যে অন্যতম হল ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসস্টিক্যাল সার্ভিস (Indian Statistical Service) পরীক্ষা অন্যতম। একটা ...

Published on:

Upsc (Union Public Service Commission) দ্বারা আমাদের ভারতে বিভিন্ন পরীক্ষা নেওয়া হয়, যার মধ্যে অন্যতম হল ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসস্টিক্যাল সার্ভিস (Indian Statistical Service) পরীক্ষা অন্যতম। একটা সময়ে এইসব পরীক্ষায় খুব বাঙালিই বসতেন এবং এই পরীক্ষা দ্বারা চাকরি পেতেন। কিন্তু বর্তমানে বহু বাঙালি এই ধরনের পরীক্ষায় বসার সাহস দেখাচ্ছেন এবং সফলও হচ্ছেন। সেই তালিকায় এবার নাম লেখালেন আলিপুরদুয়ারের (Alipurduar) বাপ্পা সাহা। যদিও তাঁর গল্প আর পাঁচটি সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীর মতো নয়। জীবনের নানান ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে গিয়েও তিনি জীবনে সফল হয়েছেন।

WhatsApp Group   Join Now
Telegram Group   Join Now

আলিপুরদুয়ারের (Alipurduar) বাপ্পা সাহার বাবা পেশায় একজন রাজমিস্ত্রি। ছোট থেকেই তাঁদের সংসারে অভাব ছিল নিত্যসঙ্গী। কিন্তু এই অভাব বাপ্পাকে কাবু করতে পারেনি। আলিপুরদুয়ারে বাংলা মাধ্যমে পড়াশোনা করেন বাপ্পা। আলিপুরদুয়ারের গোবিন্দ হাইস্কুলে সায়েন্স নিয়ে উচ্চমাধ্যমিক দেন তিনি।এরপর ২০১৬ সালে উচ্চমাধ্যমিক পাশ করে তিনি উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। সেখান থেকে খুব ভালো নম্বর নিয়ে BSC পাশ করে এগ্রিকালচার স্ট্যাটিসস্টিক্যাল নিয়ে দিল্লির ইন্ডিয়ান এগ্রিকালচার ইন্সটিটিউটে MSC করার জন্য ভর্তি হন।

দিল্লি যাওয়ার পর থেকেই তিনি ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসস্টিক্যাল সার্ভিস পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন। ২০২২ সালের জুন মাসে বাপ্পা সাহা ইউনিয়ন পাবলিক সার্ভিস কমিশন পরিচালিত ইন্ডিয়ান স্ট্যাটিসস্টিক্যাল সার্ভিস পরীক্ষা দেয়। গত ১৯ ডিসেম্বর দিল্লির ইউপিএসসি ভবনে এই পরীক্ষার ইন্টারভিউও হয়। গত বুধবার সেই পরীক্ষার রেজাল্ট বেরিয়েছে। এই পরীক্ষায় দেশের মধ্যে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছেন বাপ্পা। তাঁর বয়স এখন ২৩। এতো অল্প বয়সে এই সাফল্যে উচ্ছসিত তাঁর পরিবার। একটা সময়ে খুব কষ্ট করেছেন বাপ্পা। তাই সফল হয়ে গরীব শিশুদের জন্য কাজ করতে চান তিনি। পরিবারের পাশে দাঁড়াতে চান। এই অল্প বয়সী বাঙালির সর্বভারতীয় পরীক্ষায় এই সাফল্যে গর্বিত রাজ্যবাসী।

About Author