লেটেস্ট খবরবিনোদনভাইরাললাইফ স্টাইলঅফবিটরেসিপি

মা সিরিয়ালের ঝিলিকের কথা মনে আছে? এখন যুবতী আর সুন্দরী হয়েছে, রইলো ছবি

সন্ধ্যে হলেই টিভির পর্দায় একটার পর একটা ধারাবাহিক চলতেই থাকে। মানুষের মনকে আনন্দ দিতে জি বাংলা ও স্টার জলসার মতো চ্যানেলগুলির জুড়ি মেলা ভার। এই ...

Published on:

সন্ধ্যে হলেই টিভির পর্দায় একটার পর একটা ধারাবাহিক চলতেই থাকে। মানুষের মনকে আনন্দ দিতে জি বাংলা ও স্টার জলসার মতো চ্যানেলগুলির জুড়ি মেলা ভার। এই দুই চ্যানেলেই বেশিরভাগ সিরিয়াল প্রেমীরা দেখে থাকেন। কিছু কিছু ধারাবাহিক বছরের পর বছর মানুষের মনকে আনন্দ দিয়ে যায়।

WhatsApp Group   Join Now
Telegram Group   Join Now

আবার কিছু কিছু ধারাবাহিকের যাত্রা শেষ হয়ে যায় অল্প সময়েই। তবে সিরিয়াল দীর্ঘদিন ধরে চলুক বা অল্প সময়ে এমন কয়েকটি সিরিয়াল রয়েছে যা মানুষের মনে আজীবন ছাপ ফেলে দেয়। সেই তালিকা তেই নাম রয়েছে তিথি বসু ও মহুয়া হালদার অভিনীত মা ধারাবাহিকটির। ২০০৯ সালে প্রথম স্টার জলসার পর্দায় এই ধারাবাহিক টি টেলিকাস্ট খাওয়া শুরু হয়।

এই ধারাবাহিক টি গল্প মানুষের মনে ধরেছিল। তাই ছোট থেকে বড় সকলেই সেই সময় এই ধারাবাহিকটির নিয়মিত দর্শক ছিলেন। খুব সুন্দর ভাবে পর্দায় ফুটে উঠেছিল মা ও মেয়ের মাঝের সম্পর্ক। মায়ের চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন মহুয়া হালদার।

আর মেয়ের চরিত্র ছিল ছোট্ট ঝিলিক ওরফে তিথি বসু। ছোট্ট ঝিলিক চরিত্রটি আজও তিথি বসুর নামের সাথে মিশে রয়েছে। পরবর্তীকালে বড় ঝিলিকের চরিত্রে দেখা গিয়েছিল শ্রীতমা ভট্টাচার্যকে। তিথি বসুর জন্ম হয় ২০০০ সালে। বর্তমানে তিনি টালিগঞ্জের রানকুঠ এলাকার বাসিন্দা। মাত্র তিন বছর বয়স থেকেই অভিনয় হাতে খড়ি হয় তিথি। মা ধারাবাহিকের জন্য ঝিলিক নাকি মাথাপিছু সাত হাজার টাকা করে পরিশ্রম পেতেন। রানিকুঠির জিরিবিল্লা স্কুলের ছাত্রী ছিলেন তিথি বসু। বর্তমানে স্কুলের পার্ট শেষ করে আশুতোষ কলেজে ভর্তি হয়েছেন তিথি বসু ওরফে ঝিলিক।

আশুতোষ কলেজে সাইকোলজি নিয়ে পড়াশোনা করছেন তিথি। তৃতীয় শ্রেণীতে পড়ার সময় থেকেই অভিনয়েতে সুযোগ পান তিথি। তৃতীয় শ্রেণি থেকে নবম শ্রেণীতে পড়া পর্যন্ত তিনি মা ধারাবাহিকে অভিনয় করেন। মা ধারাবাহিককে অভিনয়ের জন্য টেলি সম্মান থেকে শুরু করে কুড়িটিও বেশি পুরস্কার পেয়েছিলেন তিথি। হৈমন্তী নামে বাংলাদেশের একটি ছবিতেও অভিনয় করেছেন তিথি।

About Author